মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব

রাজশাহী বিভাগ যুগে যুগে বিভিন্ন প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ববর্গ আগমন হয়েছে। যাদের মধ্যে এইচ এম কামারুজ্জামান, হাজীলালমোহাম্মদসরদার, অক্ষয়কুমারমৈত্রেয়, কবিশুকুরমাহমুদ, জগদিন্দ্রনাথ রায়, হাবিবুর রহমান (বুলু মিঞা), মোঃ আব্দুল জলিল, জনাবমোঃ আখতার হামিদ সিদ্দিকী, জিয়াউর রহমান অন্যতম

 

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ববিবরণ

শহীদ .এইচ.এমকামারুজ্জামান

বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ জাতীয় নেতা .এইচ.এম. কামারুজ্জামান প্রচন্ড শক্তি নিয়ে রাজনীতির অঙ্গনে আবির্ভূত হয়েছিলেন৷শহীদ .এইচ.এম. কামারুজ্জামান রাজশাহীর এক বিখ্যাত রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান৷ তিনি পরিবারের প্রথম সন্তান ছিলেন৷ দাদি আদর করে তাঁর ডাক নাম রাখেন হেনা তিনি ১৯২৩ সালে ২৬ জুন জন্মগ্রহণ করেন৷ বাংলাদেশের অন্যতম জাতীয় নেতা শহীদ কামারুজ্জামানের পিতা আব্দুল হামিদ মিয়া রাজশাহীর একজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ  সমাজসেবক ছিলেন৷ তিনি অবিভক্ত বাংলা  পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য ছিলেন৷ ১৯৫৮ সালে জেনারেল আইয়ুব খান সমগ্র পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারি করেন৷ এই সময়েই কামারুজ্জামান প্রবল শক্তি নিয়ে রাজনীতিতে ঝাঁপিয়ে পড়েন৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের একজন ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা হিসাবেতিনি ১৯৬২ আইয়ুব বিরোধী আন্দোলন, ‘৬৬-এর ছয় দফা আন্দোলন,‘৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার বিরুদ্ধে গণআন্দোলন  সবশেষে ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ কোনটাতেই তিনি পিছিয়ে থাকেননি৷ ১৯৬২ সালের নির্বাচন থেকে শুরু করে ১৯৭৫ সালের  নভেম্বর পর্যন্ত যতদিন বেঁচে ছিলেন, ততদিন তিনি কোন নির্বাচনেই হারেননি৷ ১৯৬২ থেকে ১৯৬৯ পর্যন্ত তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সম্মিলিত বিরোধী দলের সম্পাদকের দায়িত্ব

পালন করেন৷ পূর্ব  পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে বিভিন্ন বৈষম্যের বিষয়ে তিনি সোচচার হন৷ ৭১ এর ৮ই মার্চ তিনি কারফিউ প্রত্যাহারের জন্য পত্রিকায় বিবৃতি দেন৷ ১১ মার্চ রাজশাহীর ভূবনমোহন পার্কে এক বিশাল জনসভায় ঘোষণা দেন স্বাধীনতা অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম চলবে৷ এই সভায় বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের টেপ বাজানো হয়৷ ৭১ এর ১৭ এপ্রিল তিনি মুজিবনগরে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের আনুষ্ঠানিক শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে কামারুজ্জামান শপথ গ্রহণ করেন৷ তিনি সে সময়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদ স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ  পুনর্বাসন দপ্তরের দায়িত্ব গ্রহণ করেন৷ ৭৫ এর ৩রা নভেম্বর রাতে জাতীয় চার নেতা নির্মমভাবে ঢাকা জেলখানার অভ্যন্তরে গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন  এই চার নেতার একজন হচেছন .এইচ.এম. কামারুজ্জামান (হেনা)